Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

মেহেরপুরের আম যাবে ইউরোপে

গত বছর মেহেরপুরের আম রপ্তানি করা দেশে এবারও মেহেরপুরের আমের চাহিদা বেড়েছে। এবার ইউরোপের আটটি দেশে দ্বিতীয়বারের মতো মেহেরপুরের আম তার স্বাদ ছড়াবে।

 আম চাষের জেলা হিসেবে মেহেরপুরের আলাদা খ্যাতি আছে। বিশেষ করে মাটি ও আবহাওয়ার কারণে মেহেরপুরের হিমসাগর, ল্যাংড়া আমের রয়েছে আলাদা পরিচিতি। গত বছর প্রথম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পর চলতি বছর ২০০ টন আম যাবে ইউরোপের দেশগুলোয়। এজন্য জেলার বিভিন্ন আমবাগানে ব্যাগ পদ্ধতিতে আম চাষ হচ্ছে।

আমের রাজা হিমসাগরকে আন্তর্জাতিক বাজারে ছড়িয়ে দিতে মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ২০১৫ সালে উদ্যোগ নেয়। সেই উদ্যোগে জেলার ১৫টি বাগান নির্বাচন করা হয়। রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান সেসব বাগান থেকে প্রথমবারের মতো ৪৫ হাজার আম (১২ টন) সংগ্রহ করে। এবার যাবে ২০০ টন আম। নির্ধারিত বাগানগুলোয় গাছের আমে কার্বন ব্যাগ পরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আম চাষিদের প্রতিটি কার্বন ব্যাগ কিনতে হয়েছে ৪ টাকা করে। এসব ব্যাগ দুই বছর ব্যবহার করা যাবে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, গত বছর থেকে চাষি নির্বাচন করা হয়েছে কন্ট্রাক্ট ফার্মিং বা চুক্তিভিত্তিক আম উৎপাদনের জন্য। আম রপ্তানি নিয়ে কাজ করছে নেদারল্যান্ডসভিত্তিক সংস্থা সলিডারিডেড নেটওয়ার্ক।

মেহেরপুর সদর উপজেলার নির্বাচিত আমবাগান ঘুরে দেখা গেছে, বাগানগুলোয় কার্বন ব্যাগ পরানো আম শোভা পাচ্ছে। দূর থেকে দেখে মনে হয় প্রতিটি গাছে অসংখ্য বাবুই পাখির বাসা।

ঝাউবাড়িয়া গ্রামের ৩০ বিঘা জমির আমবাগানের মালিক শাহীনুর রহমান জানান, তার বাগানে ৩০০ হিমসাগর আমের গাছ রয়েছে। এসব গাছে আম বাছাই করে সেগুলো এক ধরনের কার্বন ব্যাগ পরিয়ে সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

আমদহ গ্রামের ওবাইদুর রশিদ সুমন জানান, তার বাগানের আম ইউরোপে যাবে শুনে তিনি আনন্দিত। আম চাষিরা বিদেশে রপ্তানি করার জন্য উৎসাহিত হয়ে আম গাছ পরিচর্যায় যত্নবান হয়েছেন।

চাষিরা জানান, আমে আটি আসার পর থেকেই বাছাই করা আমে বিশেষ এই ব্যাগ পরানো হয়েছে। এই ব্যাগ পরানোর ফলে বাইরের কোনোরকম রোদ, বৃষ্টি এমনকি পোকামাকড় ওই আমের ক্ষতি করতে পারবে না। এ ধরনের নির্বাচিত বাগানগুলোয় আম বাছাই করে ব্যাগে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। ২০ মে ওই আম সংগ্রহ শুরু হবে। রপ্তানি করা হবে শুধু হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপলি জাতের আম।

রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি মফিজুর রহমান বলেন, ব্যাগে সংরক্ষণ করলে আমের বোঁটা শক্ত হবে, বাইরের যে কোনো ক্ষতিকর অবস্থা থেকে রক্ষা পাবে এবং রং নষ্ট হবে না। দামও ভালো পাবে চাষি।

মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মেহেরপুরের হিমসাগর দেশের সবচেয়ে সুস্বাদু আম। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উদ্যোগে মেহেরপুরের এই সুস্বাদু হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপলি আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে রপ্তানি করা হচ্ছে। চাষিদের মধ্যে উৎসাহ দেখা দিয়েছে ব্যাগ পদ্ধতিতে আম চাষ করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
মেহেরপুরে এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। গত কয়েকদিনের কালবৈশাখী ঝড়ে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্থ হলেও চলতি বছরও আম চাষিরা লাভের আশা করছেন। এদিকে গেল বছর স্বল্প পরিসরে সুস্বাদু হিমসাগর আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে রপ্তানি হলেও এ বছর ব্যাপক হারে রপ্তানি করার প্রস্তুতি নিয়েছে বাগান মালিকও আম ...
মধূ মাসে বাজারে উঠেছে পাকা আম। জেলা শহর থেকে ৬০ কি.মি দুরের প্রত্যন্ত ভোলাহাট উপজেলার স্থানীয় বাজারে ফরমালিন মুক্ত গাছপাকা আম এখন চড়া দামে বিক্রয় হচ্ছে। মালদহ সীমান্তবর্তী বিশাল আমবাগান ঘেরা এই উপজেলায় বেশ কিছু জায়গা ঘুরে বাজারগুলোতে শুধু গাছপাকা আম পেড়ে বিক্রয় করতে দেখা ...
আমাদের দেশে উৎপাদিত মোট আমের ২০ থেকে ৩০ শতাংশ সংগ্রহোত্তর পর্যায়ে নষ্ট হয়। প্রধানত বোঁটা পচা ও অ্যানথ্রাকনোজ রোগের কারণে আম নষ্ট হয়। আম সংগ্রহকালীন ভাঙা বা কাটা বোঁটা থেকে কষ বেরিয়ে ফলত্বকে দৃষ্টিকটু দাগ পড়ে । ফলত্বকে নানা রকম রোগজীবাণুও লেগে থাকতে পারে এবং লেগে থাকা কষ ...
বাংলাদেশে উৎপাদিত ফল ও সবজির রপ্তানির সম্ভাবনা অনেক। তবে সম্ভাবনার তুলতায় সফলতা যে খুব যে বেশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানি সংশ্লিষ্ঠ ব্যাক্তিবর্গ অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্নভাবে তাদের প্রচেষ্ঠা অব্যহত রেখেছেন। কিন্তু এদের সুনির্দিষ্ট কোন কর্ম পরিকল্পনা নেই বললেই চলে। ...
মৌসুমি ফল দিয়ে কর্তা ব্যক্তিদের খুশি করে স্বার্থ উদ্ধারের পদ্ধতি অনেক দিনের। বর্তমানে এই খুশি বিষয়টি আদায় করতে নগদ অর্থ খরচ করতে হলেও ফল থেরাপি ধরে রেখেছে অনেকেই। এর একটি হল মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের জন্য নিয়মিত ...
ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নের আগুনেরচরে একটি আম গাছের গোড়া থেকে গজিয়ে উঠেছে হাতসদৃশ মসজাতীয় উদ্ভিদ বা ছত্রাক। ওই ছত্রাককে অলৌকিক হাতের উত্থান এবং ওই হাত ভেজানো পানি খেলে যেকোন রোগ ভাল হয় বলে অপপ্রচার করছে স্থানীয় ভ- চক্র। আর ওই ভ-ামির ফাঁদে পা দিয়ে প্রতিদিন প্রতারিত হচ্ছেন ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২