Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

অাম পাতায় নিয়ন্ত্রণে থাকবে ডায়াবেটিস!

পাকা হোক বা কাঁচা আম সবার প্রিয় ফল। তাইতো ফলের রাজা আম।

সুস্বাধু ও রসালো আম একটি স্বাস্থ্যকর উপকারী ফল, সেটা আমরা কম-বেশি সবাই জানি। কিন্তু আপনি জানেনি কি আমপাতারও সমান উপকারী গুণ রয়েছে?

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে প্রাচীনকাল থেকেই এ পাতার ব্যবহার হয়ে আসছে। বিশেষজ্ঞরা তেমনটাই দাবি করেছেন।

গবেষণায় দেখা গেছে, কচি আমপাতায় ট্যানিনস নামক অ্যান্থোসায়ানিডিন থাকে, যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বেশ উপকারী।

এ পাতা শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে ও হাইপারগ্লাইসেমিয়া কমাতে সাহায্য করে।

এছাড়া আমপাতা উচ্চ রক্তচাপ হাঁপানি, ব্রংকাইটিস, স্থায়ীভাবে স্ফিত বা বর্ধিত শিরা, উদ্বিগ্নতা, অনিদ্রা, জ্বর, ডায়রিয়া ও ক্লান্তি দূর করার মহৌষদ হিসেবে প্রমাণিত।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আমপাতার চা কীভাবে তৈরি করবেন, তার প্রস্তুত প্রণালী নিম্নে আলোচনা করা হল;

উপকরণ: ১১-১২টি কচি আমপাতা ও দেড় গ্লাস পানি।

প্রস্তুত প্রণালী: প্রথমে আমপাতাগুলো ধুয়ে নিন। এরপর একটি পাত্রে দেড় গ্লাস পানি ঢেলে চুলায় ফুটতে দিন। এর ৫ মিনিট পর আমপাতাগুলো ওই পানিতে দিয়ে ১৫ মিনিট হালকা আঁচে ফুটতে দিন। এরপর চুলা বন্ধ করে সারা রাত এই মিশ্রণটি ঢেকে রাখুন।

পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই খালি পেটে আমপাতার চা পান করুন। এই পানীয়টি এক মাস একটানা পান করতে হবে। তাহলে দেখবেন ডায়াবেটিস সব সময় আপনার নিয়ন্ত্রণেই থাকছে। এর সঙ্গে আপনার মেজাজও থাকবে চনমনে।

Comment (0) Hits: 2066
 
আম-রসুনের আচার

আম-রসুনের আচার

কাঁচা আম পাওয়া যাচ্ছে বাজারে। ভিটামিন সিতে ভরপুর এই ফলটি দিয়ে তৈরি করা যায় মজার সব আচার। টক, মিষ্টি, ঝাল কতরকমেরই না হয় এই আচার! আজ চলুন শিখে নেই আম-রসুনের আচার তৈরির রেসিপি-

উপকরণ: কাঁচা আমের টুকরা দুই কাপ, সরিষার তেল এক কাপ, রসুনছেঁচা এক কাপ, মেথি এক টেবিল চামচ, মৌরি এক টেবিল চামচ, জিরা এক টেবিল চামচ, কালো জিরা দুই চা চামচ, সিরকা আধা কাপ, হলুদগুঁড়া দুই চা চামচ, শুকনা মরিচ ১০-১২টি, চিনি দুই টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো।

প্রণালি: আমের টুকরোগুলোতে লবণ মাখিয়ে একরাত রেখে দিতে হবে। পরের দিন ধুয়ে কয়েক ঘণ্টা রোদে দিতে হবে। রেসিপির সব মসলা মিহি করে বেটে নিতে হবে। এরপর চুলায় সসপ্যানে তেল দিয়ে বসাতে হবে। তেল গরম হলে রসুন দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়িয়ে, তারপর বাটা মসলা দিয়ে নাড়তে হবে। এবার আম দিয়ে নাড়িয়ে নিতে হবে। কিছুক্ষণ রান্না করার পর আম নরম হলে, চিনি দিয়ে নাড়িয়ে নামাতে হবে। এরপর আচার ঠান্ডা হলে বোতলে ভরে, বোতলের মুখ পর্যন্ত তেল দিয়ে ঢাকতে হবে। এরপর কয়েকদিন রোদে দিতে হবে।

Comment (0) Hits: 1050
 

আম খান নিশ্চিন্তে , দূর হবে এই সব সমস্যা !

নিশ্চিন্তে খান আম, দূর হবে এই সব সমস্যা !

 আমের সিজন শুরু ৷ গাছে গাছে আমের মুকুল থেকে অলরেডি উঁকি দিয়ে দিয়েছে আম ৷ এমনকী, বাজারেও দেখআ মিলছে কাঁচা-পাকা আম ৷ আম দিয়ে ডাল, কাঁচা আমে বিটনুন ছড়িয়ে স্বাদবদল ৷ কিংবা ম্যাঙ্গো জ্যুস ! ডাক্তাররা বলছেন, আম খান নিশ্চিন্তে, কারণ আমের রয়েছে প্রচুর গুণ ৷ নিয়মিত আম খেলে শরীর থাকবে একেবারে ফিট ৷ দূর হবে বেশি কিছু রোগ ৷ ঝটপট পড়ে ফেলুন -

১. কাঁচা আম ক্যারোটিন ও ভিটামিনএ সমৃদ্ধ, যা চোখের দৃষ্টি বাড়াতে সাহায্য করে, রাত কানা রোগের হাত থেকে রক্ষা করে এবং চোখ ভালো রাখে ।

২. আমে রয়েছে ভিটামিন ‘বি’ কমপ্লেক্স। এই ভিটামিন শরীরের স্নায়ুগুলোতে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়। শরীরকে রাখে সতেজ। ঘুম আসতে সাহায্য করে।

৩. আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, পাকা আমের তুলনায় কাঁচা আমে ভিটামিনসি এর পরিমাণ বেশি।

৪. আমে বেটাক্যারোটিন, ভিটামিন ই এবং সেলেনিয়াম থাকায় হার্টের সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করে।

৫. আমের মধ্যে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা বিভিন্ন রকম ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে, যেমন, স্তনক্যান্সার, লিউকেমিয়া, কোলনক্যান্সার, প্রোস্টেটক্যান্সার ইত্যাদি।

৬. আমে খনিজ লবণের উপস্থিতিও রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। দাঁত, নখ, চুল, মজবুত করার জন্য আমের খনিজ লবণ উপকারী ভূমিকা পালন করে।

৭. আমে রয়েছে প্রচুর এনজাইম যা শরীরের প্রোটিনের অণু গুলো ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে, যার ফলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায় ।

Comment (0) Hits: 1704

গরমে সুপারহিট কাঁচা আম আর মাছের কম্বিনেশন! রইল ২টো রেসিপি

গরমে সুপারহিট কাঁচা আম আর মাছের কম্বিনেশন! রইল ২টো রেসিপি
গরমে  কাঁচা আম আর মাছের কম্বিনেশনের থেকে ভাল আর কিছু হতে পারে না! খেয়ে খাইয়ে আরাম! রইল ২টো রেসিপি। স্বাস্থ্যকর আথচ সুস্বাদু!

আম মৌরলার ঝোল

কী কী চাই

মাঝারি মাপের মৌরলা মাছ: ২৫০ গ্রাম, কাঁচাআম: ২টো, সর্ষের তেল: ২ টেবিল চামচ, আদা, রসুন, জিরে ও ধনেবাটা: প্রতিটা অর্ধেক চা-চামচ করে, প্রয়োজনমতো হলুদগুঁড়ো, পেঁয়াজবাটা: ১ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ: ২টো (কুচনো), কাঁচালঙ্কা চেরা: ৫টি, স্বাদমতো নুন, প্রয়োজনমতো জল

রান্না

কড়াইতে তেল গরম করে সব মশলা ও আধকাপ জল দিয়ে কষাতে থাকুন। মশলা থেকে তেল ছাড়তে শুরু করলে, মাছ দিন। মাছ আগে থেকে ভাজার প্রয়োজন নেই। এই রান্নাটা কাঁচা মাছেই হয়।

খুব সাবধানে, চামচ দিয়ে মাছের গায়ে মশলা মাখিয়ে নিন। দেখবেন, মাছ যেন ভেঙে না যায়। এবার আরও আধকাপ জল আর আমের টুকরো দিয়ে, আঁচ কমিয়ে ঢাকনা এঁটে দিন। আম সেদ্ধ হয়ে গেলে আঁচ থেকে নামিয়ে নিন।

 আম পোস্ত রুই

কী কী চাই

রুই মা‍ছের মাঝারি মাপের পিস: ৪টে, পোস্ত: ৫০ গ্রাম, কাঁচাআম: ৫০ গ্রাম, কাঁচালঙ্কা: ৪টে, সর্ষের তেল: ৩ টেবিল চামচ, স্বাদমতো নুন, হলুদগুঁড়ো : ১ চা চামচ

রান্না

মাছে নুন হলুদ মাখিয়ে ১০ মিনিট রাখুন। কড়াইয়ে তেল গরম করে, মাছ ভেজে তুলে রাখুন। আম আর পোস্ত আলাদা করে বেটে নিন।

মাছ ভাজার তেলেই আম আর পোস্তবাটা দিয়ে কষাতে থাকুন। ২ কাপ জল আর বাকি উপকরণ মিশিয়ে ১০ মিনিট মতো রান্না করুন। তেল ছাড়তে শুরু করলে, ভাজা মাছ ঝোলে দিয়ে, মিনিট পাঁচেক রেখে নামিয়ে নিন

Comment (0) Hits: 1132
মাটি ও আবহাওয়ার কারণে মেহেরপুরের সুস্বাদু হিমসাগর আম এবারও দেশের বাইরে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) ভুক্ত দেশগুলোতে রফতানি হতে যাচ্ছে।   গত বছর কীটনাশক মুক্ত আম প্রথম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করার ফলে এ অঞ্চলের আমচাষীদের মধ্যে উৎসাহ দেখা দেয়। গত বছর ১২ মেট্রিক টন আম ইউরোপিয়ান ...
ফলের রাজা আম। আর আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ। দেশের সর্ববৃহত্তর অর্থনৈতিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যলয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। এ জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল আম। বর্তমানে জেলা সবখানে চলছে বাগান পরিচর্যা ও বেচা-কেনা। বর্তমানে জেলার ২৪ হাজার ৪৭০ হেক্টর আম বাগানে ৯০ ভাগ মুকুল এসেছে। ...
আমাদের দেশে উৎপাদিত মোট আমের ২০ থেকে ৩০ শতাংশ সংগ্রহোত্তর পর্যায়ে নষ্ট হয়। প্রধানত বোঁটা পচা ও অ্যানথ্রাকনোজ রোগের কারণে আম নষ্ট হয়। আম সংগ্রহকালীন ভাঙা বা কাটা বোঁটা থেকে কষ বেরিয়ে ফলত্বকে দৃষ্টিকটু দাগ পড়ে । ফলত্বকে নানা রকম রোগজীবাণুও লেগে থাকতে পারে এবং লেগে থাকা কষ ...
বাংলাদেশে উৎপাদিত ফল ও সবজির রপ্তানির সম্ভাবনা অনেক। তবে সম্ভাবনার তুলতায় সফলতা যে খুব যে বেশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানি সংশ্লিষ্ঠ ব্যাক্তিবর্গ অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্নভাবে তাদের প্রচেষ্ঠা অব্যহত রেখেছেন। কিন্তু এদের সুনির্দিষ্ট কোন কর্ম পরিকল্পনা নেই বললেই চলে। ...
ফলের রাজা আম এ কথাটি যথাযথই বাস্তব। ফলের মধ্যে এক আমেরই আছে বাহারি জাত ও বিভিন্ন স্বাদ। মুখরোচক ফলের মধ্যে অামের তুলনা নেই। মৌসুমি ফল হলেও, এর স্থায়িত্ব বছরের প্রায় তিন থেকে চারমাস। এছাড়া ফ্রিজিং করে রাখাও যায়। স্বাদ নষ্ট হয় না। আমের ফলন ভালো হয় রাজশাহী অঞ্চলে। ...
রীষ্মের এই দিনে অনেকেরই পছন্দ আম।এই আমের আছে আবার বিভিন্ন ধরণের নাম।কত রকমের যে আম আছে এই যেমনঃ ল্যাংড়া,ফজলি,গুটি আম,হিমসাগর,গোপালভোগ,মোহনভোগ,ক্ষীরশাপাত, কাঁচামিঠা কালীভোগ আরও কত কি! কিন্তু এবারে বাজারে এসেছে এক নতুন নামের আর তার নাম 'বঙ্গবন্ধু'। নতুন নামের এই ফলটি দেখা ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২